জাতক ও জাতকের গল্প

ভারতের প্রাচীনতম গল্পসংগ্রহের নাম হল “জাতক”, পালি ভাষায় “জাতকত্থ বন্ননা”। জাতক হল বুদ্ধের পূর্বজন্মের কাহিনির সঙ্কলন। অনেকের মতে ‘জাতক’ হল পৃথিবীর সমস্ত ছোট গল্পের উৎস। সিংহলি ভাষায় যে জাতক প্রচলিত আছে, বর্তমানের “জাতক” তারই অনুবাদ। সাহিত্যিক নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যাইয়ের মতে – “জাতকের গল্পগুলো ভারতের প্রাচীনতম সঙ্কলন, এদের কিছু কিছু কাহিনি বুদ্ধের জন্মের পূর্ব থেকেই চলিত, কতগুলি বুদ্ধের সমকালীন, কতগুলি বা পরবর্তী। খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতক থেকে খ্রিস্টীয় পঞ্চম শতক পর্যন্ত জাতককাহিনির নির্মিতিকাল বলে ধরে নেওয়া যেতে পারে।” এর গল্পগুলোর অনেকগুলিই কিছুটা পরিবর্তিত অবস্থায় পাওয়া যায় ‘আরব্য উপন্যাস’এ।

একটি জাতকের গল্পঃ
পূর্বজন্মে বুদ্ধ একবার পাখিদের রাজা হয়ে জন্মেছিলেন। সে সময় তার দলের পাখিরা দূর দূরান্তে যেত খাবার খেতে। কিন্তু কাছেই একটা রাস্তা ছিল যার উপর দিয়ে প্রায়ই শস্যবোঝাই গাড়ি যেত। যাওয়ার সময় গাড়ি থেকে শস্যদানা পড়তো রাস্তায় কিন্তু পাখিরা এসব খেত না ভয়ে। তাদের ভয় দেখাত দলেরই একটি পাখি, সবাই তাকে ডাকত – অনুশাসিকা। এই নামে ডাকার কারণ, তার অনুশাসনের কারনেই কেউ রাস্তায় যেত না। সে সবাইকে বলতো – ‘রাস্তায় যেও না, যে কোন সময় গাড়ির চাকার নিচে পড়তে পার।’ কিন্তু সে নিজে সবার আড়ালে রাস্তায় গিয়েই খাবার খেত। সবাই এলে যদি তার খাবার কমে যায় তাই সে সবাইকে এভাবে ভয় দেখাত।

একদিন হলো কি, তার খাবার সময় একটা গাড়ি এসে হাজির। সে এতোই খুঁটে খুঁটে রাস্তা থেকে খাবার খাচ্ছে যে গাড়িটার দ্রুত গতির কথাটা ভাবলই না। শেষমেশ গাড়িটা তার উপর দিয়েই গেল। মারাগেল অনুশাসিকা।

এই জাতকের শিক্ষা : নিজে সাবধান না হযে অন্যকে সাবধান করা কোন কাজের কথা নয়।

Advertisements

Leave a Comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: